বাংলালিংক হয়ে যাবে ভারতের রিলায়েন্স জিও’র

বাংলালিংক’কে কিনে নিতে যাচ্ছে ভারতের অন্যতম বড় টেলিকম কোম্পানি জিও।  ভারতের পর রিলায়েন্স জিও বাংলাদেশে তাদের টেলিকমিউনিকেশন ব্যাবসা বিস্তার এর প্রচেষ্টা স্বরূপ এই কাজটি করতে যাচ্ছে।  মার্চ এর শেষে রিলায়েন্স জিও বাংলালিংক এর মূল মালিকানা প্রতিষ্ঠান ‘ভিওন’ এর সাথে এ বিষয়ে একটি সফল মিটিং সম্পন্ন করেছে।  আর এখানে জিও’র বাংলালিংক’কে অধিগ্রহন এর ব্যাপারে উভয় কোম্পানিই সম্মত হয়েছে।

মুম্বাইয়ের বৈঠকে বাংলালিংকের শেয়ার কেনাবেচার ব্যাপারে ভিয়ন ও রিলায়েন্স জিওর মধ্যে ঐকমত্য হয়। এরপরই এ-সংক্রান্ত অভ্যন্তরীণ প্রক্রিয়াও শুরু হয়। আগামী জুনের মধ্যে বিটিআরসির কাছে শেয়ার হস্তান্তরের অনুমোদনের জন্য আবেদন করার কথা রয়েছে।

বাংলালিংকের মালিকানা বদলের বৈচিত্র্যময় প্রেক্ষাপট রয়েছে। ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত দেশীয় টেলিযোগাযোগ কোম্পানি সেবা টেলিকম ০১৯ কোড নিয়ে ১৯৯৯ সাল থেকে দেশে মোবাইল সেবা দেওয়া শুরু করে। ২০০৪ সালে সেবা টেলিকমের কাছ থেকে মালিকানা কিনে নেয় মিসরের কোম্পানি ওরাসকম। তখন এর নতুন নাম হয় বাংলালিংক। ওরাসকম মালিকানা গ্রহণের এক বছরের মধ্যেই এর গ্রাহক সংখ্যা কোটি ছাড়িয়ে যায়। বাংলালিংক দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল অপারেটরে পরিণত হয়।

এরপর ওরাসকমের শতভাগ মালিকানা কিনে নেয় গ্লোবাল টেলিকম হোল্ডিংস লিমিটেড (জিটিএইচ), ফলে বাংলালিংকও জিটিএইচের অন্তর্ভুক্ত একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। এই জিটিএইচের মালিকানাধীন মালটাভিত্তিক টেলিকম ভেঞ্চারস লিমিটেডের একটি কোম্পানি হয় বাংলালিংক। পরবর্তী সময়ে জিটিএইচের বৃহত্তম শেয়ারের মালিকানা যায় ইউরোপীয় বহুজাতিক কোম্পানি ভিম্পেলকমের হাতে। ২০১৭ সালে ভিম্পেলকমের নাম বদলে হয়ে যায় ভিয়ন। গত বছর ভিয়ন জিটিএইচের পুরোপুরি মালিকানা কিনে নেওয়ার পর বাংলালিংকের মালিকানাও যায় তাদের কাছে। রিলায়েন্স জিওর সঙ্গে বৈঠকের মধ্য দিয়ে বাংলালিংকের মালিকানা বদলের আরও একটি অধ্যায়ের সূচনা এখন কেবল সময়ের ব্যাপার।

সংবাদ সূত্রঃ সমকাল